সেই শিশুকে এক মাসের মধ্যে ৫ লাখ টাকা দিতে হাইকোর্টের নির্দেশ


বন্ধন টিভি ডেস্ক
প্রকাশের সময় : আগস্ট ৭, ২০২২, ৯:১৩ অপরাহ্ণ / ১৩৪
সেই শিশুকে এক মাসের মধ্যে ৫ লাখ টাকা দিতে হাইকোর্টের নির্দেশ

সেই শিশুকে এক মাসের মধ্যে ৫ লাখ টাকা দিতে হাইকোর্টের নির্দেশ। ময়মনসিংহের ত্রিশালে সড়ক দূর্ঘটনায় অন্তঃসত্ত্বা মায়ের মৃত্যুর আগে জন্ম নেয়া শিশুটির পরিবারকে এক মাসের মধ্যে ৫ লাখ টাকা ক্ষতিপূরণ দিতে নির্দেশ দিয়েছে হাইকোর্ট বিভাগ।

সড়ক দূর্ঘটনায় ক্ষতিগ্রস্তদের ক্ষতিপূরণ দেয়ার জন্য গঠিত ট্রাস্টি বোর্ডকে এই টাকা দিতে বলা হয়েছে। বিচারপতি খিজির আহমেদ চৌধুরী ও বিচারপতি সরদার মো. রাশেদ জাহাঙ্গীর সমন্বয়ে গঠিত একটি হাইকোর্ট ডিভিশন বেঞ্চে আজ আদেশ দেন।

আদালতে ট্রাস্টি র্বোডরে পক্ষে শুনানি করনে আইনজীবী রফকিুল ইসলাম। রটিরে পক্ষে শুনানি করনে ব্যারস্টিার সয়ৈদ মাহসবি হোসাইন। রাষ্ট্রপক্ষে ছলিনে ডপেুটি এর্টনি জনোরলে প্রতকিার চাকমা।

এরআগে গত বৃহস্পতবিার শশিুটরি পরবিারকে আপাতত ৫ লাখ টাকা ক্ষতপিূরণ দতিে তনি মাসরে সময় আবদেন করে গঠতি ট্রাস্টি র্বোড।
গত ১৯ জুলাই ময়মনসংিহরে ত্রশিালে সড়ক র্দুঘটনায় অন্তঃসত্ত্বা মায়রে মৃত্যুর আগে জন্ম নয়ো শশিুটকিে দখোশোনার জন্য কমটিি গঠনরে নর্দিশে দয়ে হাইর্কোট বভিাগ। আগামী তনি মাসরে মধ্যে সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়কে এ কমটিি গঠন করতে বলা হয়।

একইসঙ্গে নবজাতকরে পরবিারকে আপাতত ৫ লাখ টাকা ক্ষতপিূরণ দয়োর নর্দিশে দয়ো হয়। ১৫ দনিরে মধ্যে সড়ক র্দুঘটনায় ক্ষতপিূরণ দয়োর জন্য গঠতি ট্রাস্টি র্বোডকে এ টাকা দতিে বলা হয়। পাশাপাশি শশিু ও তার পরবিারকে কনে র্পযাপ্ত ক্ষতপিূরণ দয়ো হবে না; তা জানতে চয়েে রুল জারি করে আদালত।

একইসঙ্গে শিশুর চিকিতসা চালিয়ে যেতে বলা হয়েছে। ময়মনসিংহের ত্রীসালে সড়ক দুর্ঘটনায় মা-বাবা ও বোনরে মৃত্যুর ঘটনায় বেচে যাওয়া সদ্যভূমিস্ঠ শিশুর ১৮ বছর র্পযন্ত যাবতীয় খরচ রাষ্ট্রকে বহনের নির্দেশনা চেয়ে গতকাল ১৮ জুলাই হাইকোর্ট বিভাগে রিট দায়ের করা হয়। আইনজীবী কানিজ ফাতেমা তুনাজি্জনার পক্ষে ব্যারস্টিার সৈয়দ মাহসিব হোসাইন এ রিট দাযের করেন। রিটে শিশুটির যাবতীয় খরচ বহন এবং তার পরিবারকে ক্ষতিপুরণ দেওয়ার বিষয়ে একটি কমিটি গঠনের নির্দেশনা চাওয়া হয়।

আরও পড়ুন : ৪২ দিনে ১০০ কোটি ছাড়াল পদ্মা সেতুর টোল আদায়

শনিবার বিকালে পৌনে ৩টার দিকে ত্রিশালের কোর্টভবন এলাকায় রাস্তা পার হওয়ার সময় ট্রাকচাপায় প্রাণ হারান অন্তঃসত্ত্বা রত্না বেগম (৩২), তার স্বামী জাহাঙ্গীর আলম (৪০) এবং তাদরে ছয় বছররে ময়েে সানজদিা। এ সময় অলৌককিভাবে মায়রে র্গভ ফটেে ভূমিষ্ঠ হয় ফুটফুটে এক নবজাতক। ভূমষ্ঠি হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে ছুটে যায় পুলশি ও আশপাশরে লোকজন। পরে নবজাতকটিকে উদ্ধার করে নেয়া হয় উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লক্সে। সেখানে নেয়ার পর জানা যায়; জীবিত আছে নবজাতকটি। এখন শিশুটিকে রাজধানীর আজিমপুর ছোটমনি নিবাসে রাখা হয়েছে।

Spread the love
Link Copied !!