মাথায় হারিয়ে যাওয়া চুল ফিরে পাবেন যেভাবে


বন্ধন টিভি ডেস্ক
প্রকাশের সময় : আগস্ট ৫, ২০২২, ৫:২৫ অপরাহ্ণ / ১১৭
মাথায় হারিয়ে যাওয়া চুল ফিরে পাবেন যেভাবে

নিউ সাউথ ওয়েলস বিশ্ববিদ্যালয়ে এক শিক্ষার্থী নিজের হারানো চুল পুনরুদ্ধার করেছে মাত্র তিন মাসে, তাও পুরাপুরি বিশ্ববিদ্যালয়ের টাকায়!

সিনি: – জেসিকা পাওয়েল, অস্ট্রেলিয়ার সিডনিতে নিউ সাউথ ওয়েলস বিশ্ববিদ্যালয়ের এক ছাত্রী, নিজের একটি পয়সাও খরচ না করে !! হারানো চুল পুনরায় ফিরে পেয়েছে। জেসিকা ঐ বিশ্ববিদ্যালয় পুষ্টি বিজ্ঞানে পড়াশুনা করছেন, এবং জেসিকা তার বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষণা প্রজেক্টের জন্য ঠিক করলেন পুরুষ এবং মহিলাদের চুলের পুনঃ বৃদ্ধি কীভাবে করা যায় সেটা বের করবেন। এর জন্যে বিশ্ববিদ্যালয়ের তহবিল ব্যবহার করাই উপযুক্ত হবে। জেসিকার মতে, “অনুসন্ধানে সবচেয়ে ব্যয়বহুল বিষয় ছিলো সঠিক ভাবে কোন কোন উপাদান কাজ করে তা খুঁজে বের করা। এই কাজে পুরো খরচই দিয়েছে ইউনিভার্সিটি। তবে চূড়ান্ত পণ্যের জন্য ব্যয় হয়েছে মাত্র ৩০ ডলার । ”

“গত তিন বছর ধরে আমি চুল হারাচ্ছি আর খুঁজে বেড়াচ্ছি এর সমাধান। মিনোক্সিডিল,জিনসেং ইত্যাদি সম্মৃদ্ধ কিছু পণ্য ও ব্যবহার করেছি যেমনঃ Rogaine,Nizoral, কিন্তু আশানুরূপ ফলাফল পাইনি যেমনটা পণ্য প্রস্তুতকারক দাবি করে । আমি ২০ বছরের এবং অবিবাহিতা, পছন্দ করি ঘুরাঘুরি করতে, বন্ধুদের সাথে সময় কাটাতে , নিয়মিত জিম এ যাচ্ছি এবং আমার ডিগ্রি শেষ করতে চলেছি , তবুও নিজেকে কেমন দেখাচ্ছে সেটা নিয়ে আস্থা হারাচ্ছিলাম। যখন এই বড় গবেষণা প্রজেক্টির বরাদ্দ আমাকে দেয়া হলো , তখন আমি এটিকে একটি বিশাল সুযোগ হিসাবে দেখলাম চুল পড়ার কারনগুলি গভীর ভাবে বুঝার জন্য এবং এর প্রাকৃতিক সমাধানের উপায় বের করার জন্য। এরপর ‍বিষয়গুলো তখনই আরো পরিষ্কারভাবে বুঝলাম যখন আমি কৃত্তিম ড্রাগ এবং প্রাকৃতিক ভেষজ চিকিৎসা পদ্ধতিগুলোর পার্থক্য পর্যালোচনা করলাম। . বাজারে চুল পুনরায় গজানোর যত গুলো উপায় তার মধ্যে সবচেয়ে কার্যকর ও নিরাপদ হলো শ্যাম্পু। এবং সেটা হতে হবে নির্দিষ্ট প্রাকৃতিক নির্যাস এবং উপাদান এর সঠিক মাত্রার শ্যাম্পু। ” – জেসিকা পাওয়েল

সেই থেকে, জেসিকা তার প্রিয় বন্ধু কেলির সাথে ওর রিসার্চের ফলাফল শেয়ার করে নিয়েছিলেন, কেলিও টাক বা চুল ঝরে যাওয়া সমস্যার সাথে লড়াই করছিলেন। দুজনে মিলে বাজারের সব পণ্য নিয়ে পর্যালোচনা করলেন তার রিসার্চ এর ফলাফল এর সাথে মিলিয়ে। এরপর পেলেন প্রাকৃতিক উপাদানের এক চমৎকার এবং পরিমিত সংমিশ্রণ ‘হেয়ার সার্জ’ যা পরীক্ষিত এবং পার্শপ্রতিক্রিয়া মুক্ত। কেলির চুলে এই প্রাকৃকিত ভেষজগুণ সমৃদ্ধ শ্যাম্পু এর ফলাফল জেসিকার চেয়ে ভালো পাওয়া গেলো।

আমরা জেসিকার সাথে বসেছিলাম কীভাবে তিনি ‘হেয়ার সার্জ’ সম্পর্কে জানতে পেরেছিলেন এবং এতো তাড়াতাড়ি চুল ঝরার বিরুদ্ধে কিভাবে সফল হয়েছিলেন সে সম্পর্কে আরও জিজ্ঞাসা করার জন্য।

সিনি: আপনার জন্য ‘হেয়ার সার্জ’ কি ব্যয়বহুল ছিল ?

জেসিকা: ধন্যবাদ, এটি আসলে মোটেই ব্যয়বহুল ছিল না । প্রথমত এই বিষয়ে আগের যত রিসার্চ এবং প্রজেক্ট ছিল সেগুলো ব্যবহার ও পর্যালোচলনার অনুমতি আমাকে ইউনিভার্সিটি থেকেই দেয়া হয়েছিল। এবং ইউনিভার্সিটির ল্যাব আমার জন্য উন্মুক্ত ছিল। এজন্য আমি আমার সুপারভাইজার ও ইউনিভার্সিটিকে ধন্যবাদ জানাই। . আমি যখন আমার প্রকল্পের কাজ করি সেটার পুরো খরচ আমার ইউনিভার্সিটি বহন করে। . ব্যাক্তিগত ভাবে আমার খরচ হয়েছে মাত্র ৩০ ডলার, সেটা শুধু মাত্র যখন আমি ‘হেয়ার সার্জ ’ শ্যাম্পুটি অনলাইনে অর্ডার করলাম ব্যবহারের জন্য ।

সিনি: চুল গজাবার জন্য শ্যাম্পু কেনার আগে কি খেয়াল রাখা উচিত ? আর ‘হেয়ার সার্জ’ই কেন ! আপনি কি এটি ব্যাখ্যা করতে পারেন ?

জেসিকা: আমি বলবো যখন আপনি চুল ফিরে পাবার জন্য শ্যাম্পু কিনবেন মনে রাখবেন বেশির ভাগ শ্যাম্পু কোনো কাজ করে না। যে বিষয়গুলো আপনার মাথায় রাখা উচিত .

১. বিজ্ঞাপনের দাবি যাচাই করুন : শুধু জমকালো বিজ্ঞাপন দেখে পণ্য কিনবেন না। ড্রাগ বা কেমিক্যাল নির্ভর পণ্য ব্যবহারে সাবধানতা অবলম্বন করুন। আমেরিকার এফ ডি এ সার্টিফিকেট আছে কিনা খোঁজ নিন। এক্ষেত্রে সবচেয়ে নিরাপদ হলো সঠিক প্রাকৃতিক উপাদানে তৈরী শ্যাম্পু ব্যবহার করা এবং এমন পণ্য খুঁজে নিন যেটার অনেক পজিটিভ ফিডব্যাক আছে, যেমনঃ ‘হেয়ার সার্জ ’.

২. সক্রিয় উপাদান খুঁজে নিন : একটি ব্যাপার সবসময় মনে রাখতে হবে যে সঠিক ও সক্রিয় প্রাকৃতিক উপাদান ছাড়া কোনো শ্যাম্পুই কাজেই আসবে না। তেমন একটি মোক্ষম উপাদান হলো ক্যাফেইন। ক্যাফেইন কোষে সরাসরি কাজ করে তাই এটি জীবন দীর্ঘায়ীকারী হিসাবে পরীক্ষিত ।

৩. কেটোকোনাজোল হলো রাজা : সময় পেলে কেটোকোনাজোল নিয়ে পরে আরো বিশদ আলোচনা করবো। শুধু মনে রাখুন যেই শ্যাম্পুতে এই প্রাকৃতিক উপাদানটি নেই তা কখনোই ভালোভাবে চুল গজাতে সাহায্য করবে না। কারণ ফলিকে ডি এইচ টি সংবেদনশীলতা , এবং কেটোকোনাজোল এটি প্রতিরোধে প্রমাণিত।

৪. পূর্বের রিসার্চ : পূর্ববর্তী রিসার্চ বলছে চুল কমে যাওয়া বা ঝরে যাওয়ার অন্যতম কারণ হলো বিয়োটিন ও জিঙ্ক এর অভাব। এর সঠিক মাত্রা চুল ফিরে পাবার জন্য গুরুত্বপূর্ণ। এই খনিজ ও ভিটামিন বি-৭ এর পরিমিত সংমিশ্রিত শ্যাম্পু (যেমন : হেয়ার সার্জ ) খুবই কার্যকর।

৫. প্রাকৃতিক এবং জৈব ভিটামিনই হলো স্বাস্থ্যকর উপাদান – উপাদানগুলির মধ্যে প্রয়োজনীয় তেল, খনিজ এবং ভিটামিন অন্তর্ভুক্ত হওয়া উচিত। এসব পুষ্টিকর, প্রয়োজনীয় তেল এবং অন্যান্য অকৃত্তিম ভেষজ এর সঠিক সংমিশ্রণ আমি পেয়েছি শুধু মাত্র ‘হেয়ার সার্জ’ এ . এতে আরো আছে সাও পালমাটো নামের এক ফল, যা প্রাকৃতিক ভাবে পাঁচ-আলফা-রেডাক্টজ এনজাইম নিয়ন্ত্রণের মাধ্যমে চুল ঝরে যাওয়া রোধে অতুলনীয়।

৩০ দিন পরে, আমি আমার চুলের ঘন লকগুলি ফিরে আসতে থাকে এবং আমার সেইসাথে আমার আত্মবিশ্বাসও ।
কেন হেয়ার সার্জ এত কার্যকর?

হেয়ার সার্জ সম্পূর্ণ প্রাকৃতিক উপাদানে তৈরী যার মধ্যে অনেক চাঞ্চল্যকর গুণ রয়েছে। এটি ক্যাফেইন এবং অন্যান্য নির্বাচিত প্রাকৃতিক এক্সট্রাক্টগুলির সাথে মিশে তাৎক্ষনিক চুলের গজানো এবং চুলের পুনঃবৃদ্ধি ২০০% এরও বেশি বাড়িয়ে তুলে।

হেয়ার সার্জ এ যা প্রমাণিত :
– স্বাস্থ্যকর নতুন চুলের বৃদ্ধি ঘটায়।
– কার্যকর মাইক্রো ক্যাফিন শ্যাম্পু প্রযুক্তি।
– মাথার ত্বকের তৈলাক্ততা এবং ডি এইচ টি উৎপাদন নিয়ন্ত্রণ করে।
– স্ক্যাল্পে টেস্টোস্টেরনের মাত্রা নিয়ন্ত্রন করে।
– চুল পড়া রোধে প্রমাণিত ভিটামিনগুলির সাহায্যে সরাসরি শক্তিশালী করে।
– চুলের ধূসর হওয়া প্রতিরোধে সহায়তা করে এবং চুলের রঙ পুনরুদ্ধার করতে পারে।
– সব ধরণের চুলের জন্য নিরাপদ।
– সুপ্ত চুলের ফলিকাগুলি “বৃদ্ধি” করে পর্যায়ে ফিরে আসে
– সুম্পূর্ণ প্রাকৃতিক উপাদানে আমেরিকায় তৈরি।
– আমেরিকার খাদ্য ও ওষুধ প্রশাসন (এফডিএ) অনুমোদিত
আমাদের পাঠকদের জন্য, জেসিকা পাওয়েল প্রতি মাসের তার চুলের পুনঃগজানো নিয়ে আপডেট দিয়েছেন, তিনি হেয়ার সার্জ ব্যবহার করেছিলেন এবং কোম্পানির যেই বিশেষ অফার এবং বিনামূল্যে ডেলিভারি লিঙ্কটি দিয়েছেন।

কিভাবে শ্যাম্পুটি ব্যবহার করতে হবে ? বিশেষ কিছু করার দরকার কিনা ?

উত্তর : শ্যাম্পুটি খুব স্বাভাবিক ভাবে ব্যবহার করতে হবে। স্বাস্থ্যকর, ঘন চুলের বৃদ্ধির জন্য প্রতিদিন মাথার ত্বকে চুলের গোড়ায় পর্যন্ত ঘষে শ্যাম্পুটি গোসল এর আগে লাগিয়ে রাখতে হবে ৫ মিনিট । তারপর স্বাভাবিক পানি দিয়ে ভালো করে ধুয়ে নিন। আর কোনো কিছুই প্রয়োজন নেই। জেসিকা বললো ‘ আমার চেয়েও কেলির চুলে ভালো কাজ করেছে শ্যাম্পু ফর্মুলাটি ’

প্রথম মাস:

আমি শুরু করেছিলাম জুলাই মাসে হেয়ার সার্জ ব্যবহার করা এবং প্রতিদিন প্রয়োগ করেছিলাম নির্দেশনা অনুযায়ী । শ্যাম্পু কোনো রকম অস্বস্তি বা মাথার ত্বকে চুলকানি বা জ্বলন সৃষ্টি করেনি । আমি জানি যে চুল ধীরে ধীরে বৃদ্ধি পায় তাই প্রথম মাস আমি নির্দেশনাগুলি অনুসরণ করেছি এবং ধৈর্য ধরে থাকার চেষ্টা করেছি। কিন্তু অবাক হওয়ার বেপার হলো প্রথম মাসের শেষ দিকেই আমার চুল ঝরা আশ্চর্য রকম কমতে থাকে।আমার চিরুনি থেকে চুল পড়া নেই হয়ে গেছে ।

আরও পড়ুনঃ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স নির্মাণে নিম্নমানের পণ্য ব্যবহার

দ্বিতীয় মাস:

আমার ব্যবহারের দ্বিতীয় মাসে, আমার মাথার পাশে এবং তালুতে চুলের পরিমাণ পুরোপুরি অনুভূত হয়েছিল। আমার বান্ধবীটি তার আঙ্গুল চালিয়েছিল আমার চুলে এবং বলেছিলো যে আমার চুলের পরিমাণ আরও বেশি হয়েছে এবং এটি যথেষ্ট পরিপূর্ণ।প্রথমবারের মতো বলেছিলো যে আমার চুল আকর্ষণীয় দেখাচ্ছে। হ্যাঁ. এটা সত্যিই খুব ভাল অনুভূতি। আমি এই মাসে চুল কাটতে গিয়েছিলাম কারণ আমার চুলগুলি দ্রুত বাড়ছিল। আমি নিয়মিত ব্যবহার করেছি দ্বিতীয় মাস সম্পূর্ণ । আমি আয়নায় যা দেখেছি তা বিশ্বাস করতে পারছিলাম না। আনন্দে আমার চোখ প্রায় ঝাপসা হয়ে পড়েছিল: ঘন কালো চুল আমার মাথার ত্বকের উপরে চাপ দিচ্ছিল, আমি ভাবছিলাম এও সম্ভব । ডিটিএইচএর ক্ষতিকারক প্রভাবগুলিকে ও ‘হেয়ার সার্জ ’অবরুদ্ধ করেছিল এবং চুলের বৃদ্ধির নতুন একটি চক্র শুরু হয়েছিল । ৩ বছরেরও বেশি অত্যধিক চুল পড়ার পরে আমার চুল অর্ধেক হয়ে গিয়েছিল, চুল ফিরে পেয়ে আমি অনেক খুশি !

সম্পাদকের মন্তব্য: জেসিকা পাওয়েল এখন হেয়ার সার্জ এর অফিশিয়াল সরবরাহকারী হিসেবে কাজ করছেন এবং আমাদের পাঠকদের জন্য সীমিত সময়ের একটি ৫০% ছাড় (এবং ফ্রি শিপিং) সরবরাহের ব্যবস্থা করেছেন!

সম্পূর্ণ তথ্য ও ছবি আন্তর্জাতিক ডেস্ক হতে সংগৃহীত।

Spread the love
Link Copied !!