চা শ্রমিকদের শোষণ আর বঞ্চনা শেষ হবার নয়


টি আই শাহীন
প্রকাশের সময় : সেপ্টেম্বর ৫, ২০২২, ১২:৫৫ অপরাহ্ণ / ১০১
চা শ্রমিকদের শোষণ আর বঞ্চনা শেষ হবার নয়

আন্দোলন-সংগ্রামে মাঝেমধ্যে মজুরি বাড়ে চা শ্রমিকদের। তবে এতেও তাদের দুর্দশা কাটে না। কারণ কাগজে-কলমে তাদেরকে নানা সুবিধা দেওয়ার কথা বলা হলেও বাস্তব চিত্রটা ভিন্ন।

চা শ্রমিকদের প্রতি মালিকদের শোষণ-বঞ্চনার ইতিহাস অনেক পুরনো। বাংলাদেশে এই শিল্পের প্রতিষ্ঠাই হয়েছে শ্রমিকদের প্রতি প্রবল অন্যায় দিয়ে, যা আজকে ভিন্নরূপে চলমান।

এই তো কিছুদিন আগেও মজুরি বাড়াতে চা শ্রমিকদের আন্দোলন দেখেছে দেশের মানুষ। শেষে প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপে তাদের মজুরি বেড়েছে।

শ্রমিকদের মজুরি এখন দৈনিক ১৭০ টাকা। প্রতিদিন ২৪ কেজির বেশি চা পাতা তুললে বাড়তি প্রতি কেজির জন্য পান সাড়ে চার টাকা।

একজন শ্রমিক দিনে চা পাতা তোলেন গড়ে ৫০ কেজি, তার যোগ হয় বাড়তি ১১৭ টাকা। সব মিলিয়ে দৈনিক প্রাপ্তি এখন ২৮৭ টাকা।

আরও অনেক কিছুই পান চা শ্রমিকরা। প্রতি মাসে রেশন, বিনামূল্যে বাসস্থান, বিনামূল্যে চিকিৎসা আর সন্তানের বিনামূল্যে লেখাপড়া।

কিন্তু এসবই আছে কাগজে-কলমে, বাস্তব চিত্র ভিন্ন। প্রত্যেক শ্রমিক সপ্তাহে দুই টাকা কেজি দরে ১০ কেজি চাল বা আটা পাওয়ার কথা, তারা পান সাড়ে তিন কেজি।

চিকিৎসা সুবিধা বলতে বুঝায়, সব রোগেই বিনামূল্যে প্যারাসিটামল আর এলাট্রল ট্যাবলেট। নেই জটিল চিকিৎসার নূন্যতম সুযোগটুকুও।

শ্রমিকরা জানান, বিনামূল্যে বাসস্থানের কথা বলে ঘরের জন্য প্রতিদিন কেটে নেয়া হয় ৭৮ টাকা। এমনকি এক ঘরে দুজন বাস করলে উভয়ের কাছ থেকেই কেটে নেয়া হয় টাকা।

তাদের আরও অভিযোগ, এসব ঘরে বসবাসের সব ন্যূনতম সুবিধাই থাকার কথা। কিন্তু সব ঘরের টিনের চালা-ই ফুটো, সামান্য বৃষ্টিতেই ভেসে যায় পানিতে।

শৌচাগার বলতে শুধু প্লাস্টিকের বস্তা আর বাঁশ কিংবা খসে পড়া ইট-সুরকির ছাউনি। দিনের পর দিন এই সুযোগ-সুবিধা নিয়েই বেঁচে আছেন মৌলভীবাজার হবিগঞ্জ আর সিলেটের চা শ্রমিকরা।

এই সুবিধা নিয়েই গত বছর দেশের ইতিহাসে সর্বোচ্চ ৯৬ দশমিক ৫১ মিলিয়ন কেজি চা পাতা উৎপাদন করেছেন তারা।

বর্তমানে সিলেট, মৌলভীবাজার, হবিগঞ্জ, চট্টগ্রাম ও রাঙ্গামাটি পার্বত্য জেলার বড় বড় চা বাগানের সংখ্যা ১৫৮টি। এসব বাগানে কাজ করেন ১ লাখ ৪০ হাজার ১৮৪ জন শ্রমিক

এদের মধ্যে উত্তরবঙ্গের এক হাজার ৮১৮ শ্রমিক বাদে বাকি সবাই কাজ করেন সিলেট অঞ্চলের ঐতিহ্যবাহী ১৫৮টি চা বাগানে।

এসব শ্রমিকের মধ্যে নিবন্ধিত শ্রমিক ১ লাখ ৩ হাজার ৭৪৭ জন এবং অনিবন্ধিত ৩৬ হাজার ৪৩৭ জন। উভয় প্রকার শ্রমিকের মধ্যে পুরুষ ৬৯ হাজার ৪১৫ এবং নারী ৭০ হাজার ৭৬৯ জন।

Spread the love
Link Copied !!